বিসনেস টক / CAREER TALK :

এক বাদাম বিক্রেতার কথা বলছিলাম। কিভাবে একজন বাদাম বিক্রেতা সাধারণ একজন চাকরিজীবী থেকে বেশি আয় করেন এবং এটা খুব সহজভাবে আর সম্মানের সহিত।

এখন অনেকেই এটা করতে যাবেন না। বাংলাদেশে এটা এতটাই হানিকর তা বলে বুঝানো যাবে না। যখন আমার আপনার মাস্টার্স পাস্ করা বোন বা মেয়েকে আমরা যারা আমেরিকান/ইউরোপীয়ান অথবা মিডল-ইস্টার্ন এ আমরা যারা তালা-বাসন পরিস্কার করি তাদের কাছে বিয়ে দেয়া হয় তখন সব আলহামদুলিল্লাহ।

আমেরিকান/ইউরোপীয়ান অথবা মিডল-ইস্টার্ন তালা-বাসন পরিষ্কার করে  আমরা এখানে ছোট-বড় না তবে বাংলাদেশে আমরা অনেক বড়।  এখানে আমাদের দেশের মানসিকতার কথা বলতে গিয়ে একথা বলতে হচ্ছে। বিদেশে কর্মরতরা দেশের অর্থনীতির চাকা চালাচ্ছে।

আসল কথায় আসি , চাকরি করেন যে কোনো একটা। ৩,০০০-৬,০০০ হাজার টাকার জব বাংলাদেশে এখন অনেক। এই জবগুলো খুবই এভেইলেবল। তবে এটা একটা ট্রিক মাত্র। এইটার সূত্র ধরে বাকি কাজগুলো বের করা। এই যেমন একটা উচ্চমাধ্যমিক স্কুলে শিক্ষকতা করলে তারা আপনাকে ৩৫০০ টাকার বেশি দিবে না। যদি নিবন্ধনকৃত শিক্ষক হন সে ক্ষেত্রে টাকা একটু বেশি হবে।  আপনি প্রাইভেট পড়িয়ে মাসে ৩০-৪০ হাজার টাকা খুব সুন্দরভাবে ইনকাম করতে পারবেন যদি স্টুডেন্টদেরকে ইমপ্রেস করতে পারেন। অনেকেই এটা করতেছে।

একাডেমিক পড়ার পাশাপাশি আপনাকে অবশ্যই একটা হাতে-কলমে করা যায় এমন একটা স্কিল বা দক্ষতা করে নিতে হবে। এই যেমন একই সাথে আপনি একজন ইলেক্টিকট্রিসিয়ান ও শিক্ষক হতে পারেন।আবার একই সাথে আপনি একজন ব্যাংকার ও প্রাইভেট টিউটর হতে পারেন।

খুব ভালো হয় যদি  একটা জিনিস নিয়ে এগিয়ে যেতে পারেন আর যদি দেখেন যে একটা জিনিস নিয়ে হচ্ছে না তাহলে আপনাকে অবশ্যই মাল্টিপল কাজ করতে হবে।

প্রত্যেক মাসে একটা ডিপোজিট একাউন্ট করে ইনকামের ৩০% সেভ করেন। ডিপোজিট একাউন্ট এ আপনি এই জন্য টাকা রাখবেন কারণ আপনাকে প্রত্যেক মাসে তা রাখতে হবে। যখন বাঙালির জন্য কোনো কিছু বাধ্যতামূলক হয়ে যায় তখন বাঙালী সব পারে।

Advertisements